পোস্টম্যান” এর সাথে একদিন!

বর্তমান বিশ্ব যেখানে থমকে আছে মহামারী করোনার কবলে পড়ে,সেখানে থমকে নেই দেশের তরুন উদ্যোক্তারা।এই লকডাউনে প্রয়োজনের তাগিদে সৃষ্ট হয়েছে হাজারো তরুন উদ্যোক্তা, যারা অনলাইনের মাধ্যমে নিজেদের পন্য বা সেবা পৌছে দিচ্ছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ভোক্তাদের কাছে।আর তাদের পন্য বা সেবা সমূহ নিরাপত্তার সাথে পৌছে দিতে পাশে আছে ” Postman”.
আজ কথা বলছি অনলাইন ভিত্তিক কুরিয়ার সার্ভিস “Postman” এর প্রতিষ্ঠাতা ও সফল উদ্যোক্তা জনাব সাজিদ হক এর সাথে।

BD.journalist :ভাইয়া,কেমন আছেন?লকডাউনে দিনকাল কেমন কাটছে?

সাজিদ হক :আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি।। তবে প্রচন্ড ব্যস্ততার মধ্যে যাচ্ছে।

BD.journalist : ব্যবসায়ের পাশাপাশি কোথায় আছেন নাকি ব্যবসায় নিয়েই কাজ করছেন?

সাজিদ হক : না আসলে আমি বিজনেস ছাড়া অন্য কিছু নিয়ে ভাবিনা, বিজনেস নিয়ে অনেকদূর যাবার ইচ্ছে আছে, ইচ্ছেটা কে গুরুত্ব দিচ্ছি।

BD.journalist : “পোস্টম্যান” এর পেছনের গল্পটা একটু যদি আমাদের শোনাতেন।

সাজিদ হক : আসলে এইটা কোন সহজ বা সোজা গল্প না, অনেক পরিশ্রম, উত্থান, পতন, আবেগ দিয়ে গড়া পোস্টম্যান! এই গল্পটা আসলে বলে একটা সাক্ষাৎকার শেষ করা সম্ভব না। তাই পুরো গল্পটি বলতে পারছি না বলে দুঃখিত।

BD.journalist : “পোস্টম্যান” কেন?অন্য কেন নাম কেন নয়?

সাজিদ হক : আসলে নাম পছন্দ এর ক্ষেত্রে আমি সবসময় আমার কাজের সাথে মিলিয়ে নাম রাখতে পছন্দ করি, পোস্টম্যান নামটি আমাদের কাজের সাথে মিল রয়েছে, সেইসাথে আমাদের হারিয়ে যাওয়ার পথের কিছু নাম আবার নতুন ভাবে বাচিয়ে রাখার চিন্তা থেকে পোস্টম্যান।

BD.journalists : “পোস্টম্যান” এর সাথে পথচলা কতদিনের?

সাজিদ হক : পোস্টম্যান এর সাথে পথচলা আমার অল্প দিনের হলেও, এই কাজের সাথে আমার পথচলা ১০ মাসের।

BD.journalists : বাহ!অসাধারণ। তো এই দশ মাসের পথচলায় মানুষের কাছ থেকে সাড়া কেমন পেলেন ?

সাজিদ হক : আলহামদুলিল্লাহ, খুব ভালো। আমি মনেকরি এই বিজনেসে কথার সাথে কাজের মিল রাখলে মানুষের কাছ থেকে সাড়া খুব ভালো পাওয়া যায়।

BD.journalists : ” পোস্টম্যান ” দাড় করাতে গিয়ে কি কি অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছেন?

সাজিদ হক : অনেক অসুবিধার সম্মুখীন হয়েছি।তার মধ্যে আমি যদি একটা বলতে যায় তা হচ্ছে এখন অনেকেই একটা ফেইসবুক পেইজ বা গ্রুপ খুলেই ব্যবসা শুরু করতে পারছে।কিন্তু, আমাদের এই প্রোডাক্ট ডেলিভারি ব্যবসায়ে বিশ্বাসের একটা ব্যাপার থাকে।আমাদেরকে গ্রুপ বা পেইজের পাশাপাশি অফিসও সামলাতে হয়।যেখানে অন্যরা সহজে একটা গ্রুপ বা পেইজ খুলে একটা প্রতিষ্ঠানের মালিক হয়ে যায় অফিস বা কর্মচারীদের বেতনের ঝামেলা নেই।স্বল্প পুঁজিতেই তারা সেবা দিতে পারে।কিন্তু আমাদের যেহেতু ট্রেড লাইসেন্স সহ বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে কাজ শুরু করতে হয় তাই বেশ সমস্যার সম্মুখীন হয়। সরকার যদি এই ব্যাপার গুলোতে একটু নজর দিতেন আমাদের জন্য এবং আমাদের মত যারা আছেন তাদের সকলের জন্য অনেক সুবিধা হত।

BD.journalists : ” পোস্টম্যান ” নিয়ে আপনার ভবিষ্যত চিন্তা কি?

সাজিদ হক : পোস্টম্যান নিয়ে চিন্তা বলতে গেলে আমি বলবো পোস্টম্যান কে আমি ইন্টারন্যাশনাল লেভেলে নিয়ে যেতে চাই।। যদিও এই অবস্থায় দাড়িয়ে শুনতে হাস্যকর মনে হতে পারে। কিন্তু এইটা আমার চিন্তা এইটা আমার স্বপ্ন।

BD.journalists : বাহ!অসাধারণ।আচ্ছা,অনলাইন বিজনেসে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কতটা সাপোর্টিভ বলে মনে হচ্ছে?

সাজিদ হক : দেখুন, আমাদের মোট জনসংখ্যা এর মাত্র ৭ ভাগ মানুষ অনলাইন থেকে কেনাকাটা করছে। এই সংখ্যা প্রতিদিন বাড়ছে। আমরা যারা অনলাইন বিজনেস করছি সত তার সাথে যদি বিজনেস করি, মানুষের আস্থার জায়গা তৈরী করতে পারি তাহলে আগামী ৬/৭ বছরের মধ্যে বাংলাদেশের অনলাইন বিজনেস বেশ ভালো অবস্থায় যাবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

BD.journalists : বর্তমানে যারা অনলাইন বিজনেস করতে ইচ্ছুক বা ভবিষ্যতে করতে ইচ্ছুক তাদের উদ্দেশ্যে যদি কিছু বলতেন।

সাজিদ হক : ছবি দিয়ে ব্যবসা হয়না। ছবি আপলোড দিবো টাকা আসবে, এই ধারণা থেকে বাহির হয়ে আসতে হবে, কোনভাবে হিংসা পরায়ন হওয়া যাবেনা। একা না সংঘবদ্ধ হয়ে কাজ করার মানসিকতা তৈরি করতে হবে।

BD.journalists : আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ আমাদেরকে সময় দেওয়ার জন্য। “পোস্টম্যান” ও আপনার জন্য অনেক অনেক শুভকামনা।
সাজিদ হক : আপনাদের জন্যও অনেক অনেক শুভকামনা রইল।ধন্যবাদ।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে