“সুখ”


—-মিফতাহুল জান্নাত হেনা।

“সুখ”
বড়ই আপেক্ষিক একটা বিষয়।আপেক্ষিকতা আছে বলেই আমরা এর জন্য ব্যাকুল হয়,এর মর্ম বুঝি,বেলা শেষে সুখি হতে চাই।
কিন্তু,কি বলুন তো… আমরা সুখের পিছে ছুটি সুখ পেতে।একটাবার ভাবি না এই আপেক্ষিক মনস্ত্বাত্তিক বিষয়টা সাথে নিয়ে ছুটলে কিন্তু পাওয়াটা সহজ হয়।বুঝলেন না,তাই তো?
আপনার কাছে সুখ মানে কি?বাড়ি-গাড়ি,প্রতিপত্তি,সম্মান এসব?নাকি সৃষ্টিকর্তার নাম নিয়ে দিন শুরু করে ভালভাবে শেষ করতে পারা?কোনটা?সুখকে সংজ্ঞায়িত করা যায় না এটা যেমন সত্য তেমন সহজ,সুন্দর সবকিছুই সুখ এটাও সত্য।
কে আপনার সাথে ভালোভাবে কথা বলল/না বললো, কে আপনাকে পাশে রাখলো/না দূরে ঠেলে দিল এটা বিষয় না।বিষয় হচ্ছে আপনি কতজনকে পাশে রেখে ভালোভাবে কথা বললেন।
হ্যাঁ, এটাই বিষয়।দিনশেষে যখন আপনার নিজেকে নিয়ে কোনো অভিযোগ থাকবেনা আপনি এক আত্মতৃপ্তি পাবেন।এই আত্মতৃপ্তিই সুখ।
আচ্ছা,আপনি কখনও রাস্তার পাশের একটা ফুল দেখে খুশি হয়েছেন?আকাশ সমান খুশি?কখনও আপনার চাকরী চলে গেছে আপনি এক অদূর অনিশ্চয়তা নিয়ে বাড়ি ফিরছেন সেখানে কোনো সুখের দিশা পেয়েছেন?
পান নি,তাইতো?ভাবছেন,রাস্তার পাশের ঐ একটা ফুল আপনাকে আর কিইবা সুখ দিতে পারে বা চাকরী চলে যাওয়ার মত দুঃসংবাদের মধ্যেও সুখের দিশা আসবে কোথা থেকে।তাইতো?
কিন্তু,আমি পেয়েছি।একটাবার ভেবেছেন ঐ ফুলটা ফোটাতে রাস্তার সৌন্দর্য কতটা বেড়েছে ? আবার,আজ আপনার চাকরী চলে যাওয়াই আপনি হয়তো মানসিক দুশ্চিন্তায় আছেন ঠিকই কিন্তু বাড়ি গিয়ে যে প্রিয়জনের সাথে একটা গৌধুলীর প্রহর পার করা হবে সেটা ভেবেছেন???
এগুলো সুখ।
অনেক খারাপের মাঝেও এগুলো আপনাকে আকাশ সমান সুখ এনে দিতে পারে যদি আপনি চান।
সুখটা আপেক্ষিক,অসংজ্ঞায়িত।তাই,এটাকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ করে তুলুন।দেখবেন,সুখী হতে সুখ সুখ করে কাঁদতে হবেনা।
“#Try_to_make_your_HAPPINESS_AFFORDABLE”

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে