ধোনির টিম করোনায় আক্রান্ত



আইপিএলের নাম নিলেই চলে আসে প্রথম লিস্টে থাকা চেন্নাই সুপার কিংস। জনপ্রিয়তা আর বেশি খেতাব ধারী এই দলের অধিনায়ক ভারতের জনপ্রিয় ক্রিকেটার এবং বিশ্বকাপ জেতা মহেন্দ্র সিং ধোনি।
কিন্তু মহেন্দ্র সিং ধোনির চেন্নাই সুপার কিংসে যেন কোভিড-১৯ এর বিস্ফোরণ ঘটেছে।দলটির একজন পেসারসহ ১৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ভারতের সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস।
এর ফলে দুবাইয়ে ১ সেপ্টেম্বর শুরু হতে যাওয়া চেন্নাইয়ের অনুশীলন স্থগিত করা হয়েছে। করোনা পজিটিভ হওয়া সবাইকে কমপক্ষে দুই সপ্তাহ আবারও কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।তাই এই নিয়ে বিপাকে পড়েছেন সকলেই।
সবচেয়ে বেশি আলোচনা হচ্ছে দুবাই রওনা হওয়ার আগে ধোনিদের ক্যাম্প এবং ফ্লাইটের ভেতরে খোলামেলা পদচারণা। প্রশ্ন উঠেছে,কেনই বা তারা সব জেনেও নিয়ম মানেনি?
বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারীর জন্য সাধারণ সতর্কীরণ হিসেবে বলা হয়েছে নির্দিষ্ট সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে এবং মুখে মাস্ক ব্যবহার করতে। কিন্তু দুবাইগামী চেন্নাই সুপার কিংসের ফ্লাইটের মধ্যে এমন ছবিও আছে যেখানে দেখা যাচ্ছে, এক জন খেলোয়াড় আর এক জনকে কিছু একটা খাবার এগিয়ে দিচ্ছেন। দুজনের কারও মুখেই মাস্ক কিংবা হাতে গ্লাভস নেই এবং তারা নির্দিষ্ট সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখেনি। যেখানে অন্যান্য অনেক দল বিমানবন্দরে তাদের ক্রিকেটার বা সদস্যদের এনেছিল পুরো পিপিই কিট পরিয়ে। রাজস্থান রয়্যালস বা মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের অনেক ছবিতেই দেখা গেছে, সুরক্ষার ব্যাপারে কোনোরকম আপোষ না করে তাদের দুবাই পাঠানো হয়েছে।
কোভিড-১৯ মহামারিতে ভারতের সবচেয়ে আক্রান্ত শহরগুলির একটি হলো চেন্নাই। সেখানের এম চিদাম্বরম স্টেডিয়ামে ৫ দিনের ক্যাম্প আয়োজন করে সুপার কিংস। এদিকে খেলোয়াড়দের ক্যাম্প করার সিদ্ধান্তের বিষয়ে বিস্মিত অনেকেই। কারণ এলাকাটি স্টেডিয়ামের খুব কাছেই চেন্নাইয়ের ত্রিপলিক্যান এলাকা। এলাকাটি চেন্নাইয়ের করোনা হটস্পট হিসেবে পরিচিত।ধোনির ইচ্ছাতেই নাকি এই ক্যম্প আয়োজন করা হয়েছিল। তাই,এই সময়ে এমন সাধারণ চলাফেরায় ফল এসেছে হাতেনাতে।
এমন স্থানে ধোনি কী করে ক্যাম্প করার সিদ্ধান্ত নেন,এমন উদাসীন মনোভাবের জন্যই কি বিপদ ডেকে আনল চেন্নাই সুপার কিংস?
এখনও পর্যন্ত পাওয়া চেন্নাইয়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় পৌনে ২ লাখ, এ মহামারিতে প্রাণ হারিয়েছেন ২৬০০ এর বেশি মানুষ।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে