নাগেশ্বরীতে বজ্রবিদ্যুৎসহ বৃষ্টি বজ্রপাতে মারা গেছে ১ জন


নাগেশ্বরীতে শেষ ভাদ্রে মৌসুমী জলবায়ুর প্রভাবে গত দুইদিন ধরে বজ্রবিদ্যুৎসহ বৃষ্টি হচ্ছে। মারা গেছে ১জন। প্রভাব পড়েছে স্বাভাবিক জনজীবনে।
শনিবার সকালে ঝলমলে আকাশের সুর্যরশ্মিতে আলোকিত হয় পৃথিবী। কিছু সময় পর কয়েক খন্ড মেঘ এসে ঢেকে দেয়। দুপুরে সেই মেঘ বৃষ্টি হয়ে ঝরতে থাকে। সঙ্গে ছিল মেঘের গর্জন ও বজ্রবিদ্যুৎ। এ অবস্থায় বিকেলে বাড়ীর পাশে ব্রয়লার মুরগির খামারে যাওয়ার পথে মারা যায় পৌরসভার পাখির মোড় এলাকার ইব্রাহিম আলীর ছেলে শাওন আহমেদ (১৫)।
ওইদিন রাত ১০ টা পর্যন্ত বিক্ষিপ্তভাবে চলে বৃষ্টিপাত। এরপর বিরতি দিয়ে গভীররাত থেকে তা মুষলধারে ঝরতে থাকে। রবিবারও তা অবিরাম চলতে থাকে। মেঘের গর্জন ও বিদ্যুতের ঝলকানিতে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে বের হতে সাহস পায়নি। তবে ভয় ও আতঙ্ক নিয়ে অফিস, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গেছেন অনেকেই। বৃষ্টিতে ভিজে কাজে গেছেন খেটে খাওয়া নি¤œ আয়ের মানুষ। ফিরেছেন কাকভেজা হয়ে। সবমিলিয়ে শরতের এ বৃষ্টিতে ছন্দপতন ঘটেছে মানুষের স্বাভাবিক চলাফেরায়।
এদিকে ভারী বৃষ্টিপাতে প্রাণ ফিরেছে কৃষিতে। জল জমেছে রোপা আমন ক্ষেতে। তাই মেঘের গর্জন ও বজ্রপাতের ভয় উপেক্ষা করেও মাঠে গেছেন কৃষক। বৃষ্টিতে ভিজেই জমির আল ঠিক করে নিড়ানীতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন অনেকেই।
কুড়িগ্রাম রাজারহাট কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার বলেন, মৌসুমী জলবায়ু সক্রিয় থাকায় এ বৃষ্টিপাত হচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় এ এলাকায় ৬৮.১ মি.মি বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আগামী ২-৩ দিন আকাশ মেঘলা থাকবে। হালকা ও ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। তবে বন্যার কোন আশংকা নেই।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে