ফুলবাড়ীতে বিয়ের প্রলোভনে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীকে জোড়পূর্বক ধর্ষণ,থানায় মামলা



কুড়িগ্রাম সংবাদদাতাঃ প্রথমে পরিচয় তারপর প্রেম,সর্বশেষ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে নবম শ্রেণীর এক মাদ্রাসার শিক্ষার্থীকে জোড়পুর্বক ধর্ষনের অভিযোগ উঠেছে ভন্ড প্রেমিকের বিরুদ্ধে। পরে ধর্ষনের শিকার ওই শিক্ষার্থী বিয়ের দাবীতে প্রেমিকের বাড়ীতে অবস্থান নিলে সু-কৌশলে পালিয়েছে ধর্ষক ও ভন্ড প্রেমিক। শেষে উপায়ান্তর না পেয়ে বুধবার ফুলবাড়ী থানায় উপস্থিত হয়ে ভন্ড-প্রেমিক ও তার সহযোগীর বিরুদ্ধে নারী-শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেছে নির্যাতিতা ওই শিক্ষার্থী। আজ বৃহস্পতিবার পুলিশ ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য ওই শিক্ষার্থীকে আদালতের মাধ্যমে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে।
নির্যাতিতার পরিবার ও পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বিলুপ্ত দাসিয়ারছড়ার খড়িয়াটারী গ্রামের আফছার আলীর ছেলে লিটন মিয়া (২১) এর সাথে ওই শিক্ষার্থীর সাথে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছিল।
গত ০৮ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকালে প্রেমিক লিটন মিয়া মোবাইল ফোনে ওই শিক্ষার্থীকে পালিয়ে বিয়ে করার প্রস্তাব দেয়। এক পর্যায়ে লিটন তার বন্ধু একই গ্রামের আব্দুল মামুদের ছেলে ফরিদ মিয়া (২২) কে পাঠিয়ে তার সাথে ওই শিক্ষার্থীকে চলে আসার জন্য বলে। পরে ওই দুপুর বেলা প্রেমিকের বন্ধুর সাথে প্রেমিক লিটনের কাছে চলে আসে ওই শিক্ষার্থী। পরে লিটন তাকে নিজের বাড়ীতে না নিয়ে পাশের একটি বাড়ীতে নিয়ে যায়। ওই বাড়ীতে কেউ না থাকার সুযোগে প্রেমিক লিটন মেয়েটিকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর পুর্বক ধর্ষন করে। পরে ওই শিক্ষার্থী বিয়ের কথা বললে কৌশলে পালিয়ে যায় সে।
নির্যাতিতা ছাত্রীর বড়ভাই জানান, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই লম্পট লিটন আমার বোনের সর্বনাশ করেছে। আমরা তার উপযুক্ত বিচারওে দাবী জানাচ্ছি।
এ ব্যাপারে ফুলবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রাজীব কুমার রায় জানান, ধর্ষনের অভিযোগে দুই জনের বিরুদ্ধে নারী-শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের হয়েছে। ভিকটিমের ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য আদালতের মাধ্যমে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে এবং আসামী গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

2 মন্তব্য

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে