বাকেরগঞ্জে শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন না করার দাবিতে মানববন্ধন ও গণস্বাক্ষর কর্মসূচি


বরিশাল প্রতিনিধি : শতবর্ষের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক বাকেরগঞ্জের শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নাম যেন পরিবর্তন না হয় সেজন্য বিদ্যালয়ের বর্তমান ছাত্র-ছাত্রী, প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রী, অভিভাবক ও স্থানীয় ব্যক্তিবর্গের উদ্যোগে সম্মিলিতভাবে মানববন্ধন ও গণস্বাক্ষর কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০ টায় শ্যামপুর-বাকেরগঞ্জ সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন রঙ্গশ্রী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ নেতা হারুন হাওলাদার, রঙ্গশ্রী ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আলম ভুইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক হিরু মৃধা, যুবলীগ নেতা মেহেদী হাসান শামীম, ইউপি সদস্য রফিক হাওলাদার, প্রাক্তন ছাত্র আমির হোসেন, কাইয়ুম, এনায়েত মেম্বার, প্রাক্তন ছাত্রী মাকসুদা বেগম, মারিয়া বেগম, রিনা বেগম প্রমূখ। বক্তারা বলেন, শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয় ১৯৩২ সালে। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর সংসদ সদস্য বেগম নাসরিন জাহান রতনার সহযোগিতায় বিদ্যালয়টির ব্যাপক উন্নতি হয়েছে। সম্প্রতি বিদ্যালয়ে নতুন একটি চারতলা ভবন হয়েছে, মাঠ ভরাট করা করা হয়েছে। বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ৮৮ বছর পেরিয়ে আর মাত্র ১২ বছর পরেই বিদ্যালয়ের শতবর্ষ লগ্নে বিদ্যালয়ের উপর শকুনের নজর পড়েছে। বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত পর থেকে হাজার হাজার শিক্ষার্থীর এসএসসি পাশের সার্টিফিকেটে বিদ্যালয়ের যে নাম রয়েছে বিদ্যালয়ের সেই নাম পরিবর্তন কোনভাবেই মেনে নেয়া হবেনা। ১৯৩২ সালে যখন শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করা হয়, তখন সকল দাতা এবং প্রতিষ্ঠাতাদের সাথে আলোচনা করেই বিদ্যালয়টির নাম দেয়া হয়েছিল। আর তাছাড়া নিশ্চয়ই কোন রাজাকার, আলশামস কিবা আলবদরের নামে বিদ্যালয়ের নাম দেয়া হয়নি। তবু কেন শতবর্ষ প্রতিষ্ঠালগ্নে বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তণ নিয়ে এমন নোংরা রাজনীতি করতে হবে। বক্তারা আরও বলেন, কেউ যদি এলাকায় কিছু করতে চান, তাহলে শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন না করে তিনি নতুন একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে পারেন। যেহেতু এ এলাকায় কোন কলেজ নেই। একটি কলেজ নির্মাণ করলে শত শত ছাত্র-ছাত্রীর উপকার হবে। এলাকাবাসী, প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্র-ছাত্রীদের দাবি শতবর্ষ লগ্নে শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি নিয়ে যদি ৮৮ বছর পর কোন কুচক্রী মহলের প্ররোচনায় এ ধরনের নাম পরিবর্তনের অপচেষ্টা করা হয় তাহলে তারা আরও কঠোর থেকে কঠোরতর আন্দোলনের মাধ্যমে তার দাঁত ভাঙ্গা জবাব দিবেন।
শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তনের দাবিতে মানববন্ধনের সাথে একাগ্রতা পোষণ করে ৬-৭ শত লোক উপস্থিত ছিলেন। এ বিষয়ে তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন শেষে শ্যামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নাম পরিবর্তন না করার দাবিতে সহস্রাধিক এলাকাবাসীর গণস্বাক্ষর নেয়া হয়।

গোলাম রহমান //

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে