৫৫ কোটি টাকার সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার করলেন-এসিল্যান্ড”


নরসিংদীতে গত এক মাস অভিযান পরিচালনা করে ১১ একর সরকারি সম্পত্তি যার বাজার মূল্য প্রায় ৫৫ কোটি টাকা প্রভাবশালী দখলদারদের কাছ থেকে উদ্ধার করেছে জেলা প্রশাসন। গেল আগস্ট মাসে নরসিংদী জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইনের নির্দেশে দফায় দফায় সদর উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে অভিযান পরিচালনা করে এসব সরকারি খাস জমি উদ্ধার করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও নরসিংদী সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার ভূমি শাহ্ আলম মিয়া।


এ ব্যাপারে ভূমি অফিসও স্থানীয়রা জানায়, উদ্ধার হওয়া সরকারি খাস জমি বন্দোবস্ত না নিয়ে ও ভিপি জমি অবৈধ দখলে রেখে দখলদাররা পাওয়ালম, সাবান ফ্যাক্টরি, মৎস্য খামার, মুরগির খামার, বাড়ি নিমার্ণসহ বিভিন্ন স্থাপনা তৈরি করে ভাড়া দিয়ে নিজেরাই আর্থিক লাভবান হয়েছে। অন্যদিকে সরকার হারিয়েছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। এ ছাড়া ভিপি সম্পত্তি ১৯৮৪ সালে লিজ নেওয়ার পর থেকে এখন অবধি নবায়ন করেনি। এমনকি সরকারের লিজমানী অর্থ ও পরিশোধ করেননি। ফলে ৩৬ বছরে সরকারের রাজস্বর বেঘাত হয়েছে প্রায় কোটি টাকা।


ভাই গিরিশচন্দ্র সেন গনপাঠাগারের সভাপতি মো:শাহিনূর মিয়া জানান, এসিল্যান্ড শাহ্ আলম মিয়া জনবান্ধব ভূমি সেবা শতভাগ নিশ্চিত করেছেন। পাশাপাশি তিনি কোটি কোটি টাকা মূল্যের সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার করেছেন । ইতিহাস হয়ে থাকবে এসিল্যান্ড শাহ্ আলম মিয়ার কর্মকান্ড।
নরসিংদী ইনডিপেনডেন্ট কলেজের অধ্যক্ষ ও নকশিস্ সভাপতি ড. মশিউর রহমান মৃধা জানান, শুধু সরকারি সম্পত্তি উদ্ধারের ক্ষেত্রে নয়, করোনা কালীন সময়ে এসিল্যান্ড শাহ্ আলম মিয়া নিজের কথা না ভেবে ,নিজের পরিবারের কথা না ভেবে, জেলা প্রশাসকের নেতৃত্রে দিনরাত-রাতদিন এক করে প্ররিশ্রম করেছেন। দেশের স্বার্থে,জাতীর স্বার্থে,সমাজের স্বার্থে সকল কর্মকর্তা যদি সদরের এসিল্যান্ড শাহ্ আলম মিয়ার মত দায়িত্ব পালন করেন তাহলে অচিরেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় বাংলাদেশ গড়ে উঠবে।


জেলার সামাজিক ও সচেতন মহল মনে করছে, নরসিংদীতে এর আগে ও সরকারের দিকনির্দেশনা বাস্তবায়নে মাঠ পর্যায়ে অনেক এসিল্যান্ড কর্মরত ছিল। কিন্তু সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার কিংবা জনবান্ধব ভূমি সেবা নিশ্চিত করতে এত তৎপর হতে দেখা যায়নি। বর্তমান এসিল্যান্ড শাহ্ আলম মিয়া ভূমি অফিসকে জনবান্ধব অফিসে রুপান্তর ও শত শত একর সরকারি সম্পত্তি উদ্ধার করে জেলাজুড়ে ব্যাপক আলোচিত হয়েছেন।


সহকারী কমিশনার ভূমি ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট মো. শাহ্ আলম মিয়া জানান, সরকারি স্বার্থ,সম্পদ-সম্পত্তি রক্ষা এবং সংরক্ষণে বদ্ধপরিকর জেলা প্রশাসন নরসিংদী। এরই ধারাবাহিকতায় জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দা ফারহানা কাউনাইন স্যারের নির্দেশনায় সদর উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে গত এক মাস অভিযান পরিচালনা করে সরকারের প্রায় ১১ একর খাস ও ভিপি সম্পত্তি যার বাজার মূল্য প্রায় ৫৫ কোটি টাকা বেদখলমুক্ত করে সরকারের আয়ত্বে নেয়া হয়েছে। সরকারি সম্পত্তি দখলমুক্তকরণের প্রশাসনের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।


জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, উদ্ধার হওয়া সরকারি খাস জমিতে,মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন,অস্বচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধা,নদী ভাঙ্গনে সর্বসান্তদের মাঝে বন্দোবস্ত করা হবে। এ ছাড়া সরকারী স্থাপনা নিমার্ণের জন্য বরাদ্দ,জলধার স্থাপন,ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জন্য বরাদ্ধ ও ক্ষেত্র বিশেষ খাজনা বা লীজমানীয় আদায় সাপেক্ষে লীজ বন্দোবস্ত করা হবে। অপর দিকে জেলা প্রশাসনের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সাধারণ মানুষ।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে