চিনের ভ্যাকসিনের জরুরি’,ব্যবহারের অনুমোদন দিল আমিরাত 

করোনাভাইরাসের একটি কার্যকারী ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের জন্য কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানী এবং গবেষকরা। চীনের সিনোফার্মের উদ্ভাবিত করোনা ভ্যাকসিন জরুরী প্রয়োজনে ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। অন্যদিকে নিজেদের উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন পরীক্ষা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্রের কোভ্যাক্স এবং জার্মানির তবিঞ্জেন বিশ্ববিদ্যালয়।

সবচেয়ে বেশী দেশের নাগরিকের বাস থাকায় সংযুক্ত আরব আমিরাতে নিজেদের ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা শুরু করে চীনের রাষ্ট্রীয় ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান সিনোফার্ম। দেশটিতে ৩১ হাজার স্বেচ্ছাসেবকের ওপর পরীক্ষা চালানোর পর, জরুরী প্রয়োজনে সিনোফার্মের ভ্যাকসিন ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে আমিরাত সরকার।

নিজেদের উদ্ভাবিত চারটি করোনা ভ্যাকসিনের পরীক্ষা শেষ পর্যায়ে রয়েছে বলে জানিয়েছে চীন। দেশটির সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন- সিডিসি’র প্রধান দাবী করেছেন, নভেম্বর বা ডিসেম্বরের মধ্যেই তাদের করোনা প্রতিষেধক বাজারে আসতে পারে।

চীন সিডিসি প্রধান গুইঝেন য়ু বলেন, সবকটি ভ্যাকসিনের পরীক্ষাই খুব ভালোভাবে চলছে। চারটি ভ্যাকসিনের মধ্যে তিনটি আমাদের কর্মীদের ওপর প্রয়োগ করা হয়েছে। আশা করি খুব দ্রুতই একটি ভালো খরব জানাতে পারবো।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কভিত্তিক ইউনাইটেড বায়োমেডিকেলের সহযোগী প্রতিষ্ঠান কোভ্যাক্স উদ্ভাবিত করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ধাপের পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এরইমধ্যে প্রতিষ্ঠানটি দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ধাপের পরীক্ষার জন্য ব্রাজিলের সাথে একটি চুক্তি করেছে। এর ফলে প্রথম ধাপের পরীক্ষা সফল হলে ব্রাজিলে পরবর্তী ধাপের পরীক্ষা চালাবে প্রতিষ্ঠানটি।

দুটি ভাইরাল প্রোটিনের আটটি অংশের মাধ্যমে প্রতিরোধ সহায়ক ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের কথা জানিয়েছে জার্মানির তবিঞ্জেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। এরইমধ্যে তারা শুরু করেছে ভ্যাকসিনটির প্রথম ধাপের পরীক্ষা।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত ২৭টি ভ্যাকসিনের প্রথম ধাপ, ১৪টি ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ধাপ এবং ৯টি ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা চলছে। এরমধ্যে জরুরি প্রয়োজনে সীমিত আকারে ব্যবহারের জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়েছে ৫টির। আর বিভিন্ন দেশের গবেষক এবং বিজ্ঞানীরা, পশুর দেহে প্রয়োগের মাধ্যমে পরীক্ষা চালাচ্ছেন অন্তত ৯২টি ভ্যাকসিনের। আর রাশিয়া নিজেদের উদ্ভাবিত করোনার ভ্যাকসিন স্পুটনিক ভি এর গণপ্রয়োগ শুরু করলেও, এর পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিজ্ঞানীরা।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে