রাজধানীতে ব্যারিস্টার আসিফ নিহতের ঘ’ট’না’য় স্ত্রী-শ্বশুর-শাশুড়ির বিরুদ্ধে মামলা।

রাজধানীর কাঁঠালবাগানে বাসা থেকে পড়ে ব্যারিস্টার আসিফ ইমতিয়াজ খান নিহতের ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ফাইল ছবি

রাজধানীর কাঁঠালবাগানে নয়তলা বাসা থেকে পড়ে জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) শহিদুল ইসলামের ছেলে ব্যারিস্টার আসিফ ইমতিয়াজ খান নিহতের ঘটনায় চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা ম্যাট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরীর আদালতে আসিফ ইমতিয়াজের বাবা শহিদুল ইসলাম খান বাদী হয়ে এই মামলাটি দায়ের করেন।

পরে শহিদুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, বিচারক জবানবন্দি গ্রহণ করে কলাবাগান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) এজাহার গ্রহণ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলায় আসামি করা হয়েছে- আসিফের স্ত্রী সাবরিন শহীদ নিশিতা, শ্বশুর এ এস এম শহিদুল্লাহ মজুমদার, শাশুড়ি মিসেস রাশেদা আক্তার ওরফে রাশেদা শহীদ ও সাবরিন শহীদ নিশিতার ভাই (শ্যালক) সায়মান শহীদ নিশাতকে।

গত ১১ সেপ্টেম্বর সকালে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে বাসা থেকে বের হয়ে ছাদে বেশ কিছু সময় অবস্থান করেন আসিফ। এরপর বাসার নিচে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

আসিফ সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-কামারখন্দ) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলামের ছেলে। শহিদুল ইসলাম পরিবার নিয়ে মিরপুরে থাকেন। আসিফ তাঁর স্ত্রী সাবরিনা শাহিদ নিশিতাকে নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে থাকতেন এবং সুপ্রিম কোর্টে আইন পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। পাশাপাশি তিনি মতিঝিলের দেশ ট্রেডিং করপোরেশনের লিগ্যাল অ্যাডভাইজার ছিলেন।

আসিফের বাবা অ্যাডভোকেট শহিদুল ইসলাম জাতীয় পার্টি থেকে ১৯৮৬-৯০ মেয়াদে সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি কামারখন্দ) আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। তাঁর আরেক ছেলে আসিফ ইমরান খান হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গত ১৮ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে