‘মা’ ইলিশ সংরক্ষণ কার্যক্রম উপলক্ষে কুয়াকাটায় সচেতনতামূলক সভা-অনুষ্ঠিত

জহির রায়হান,কুয়াকাটা প্রতিনিধিঃ

ছবিঃমা ইলিশ সংরক্ষন সচেতনতামূলক সভা-অনুষ্ঠিত(বিডি জার্নালিস্ট)


পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় “মা ইলিশ রক্ষা করি,ইলিশ সম্পদ বৃদ্ধি করি”এই শ্লোগানকে সামনে রেখে ‘মা’ ইলিশ রক্ষায় সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বুধবার (০৭ অক্টোবর ) দুপুর ১২ টায় মৎস্য বন্দর কুয়াকাটায় অনুষ্ঠিত হয়। ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম আগামী ১৪ ই অক্টোবর হতে ০৪ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দে পর্যন্ত মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ। মৎস্য সংরক্ষণ আইন ১৯৫০ অনুযায়ী এই নিষিদ্ধকালীন সময় সারাদেশে পরিবহন,মজুদ,বাজারজাতকরণ,ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় নিষিদ্ধ ও দন্ডনীয় অপরাধ।এ আইন অমান্যকারীকে এক থেকে সর্বোচ্চ দুই বছর সশ্রম কারাদন্ড অথবা ৫ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত করা যাবে।

‘মা’ ইলিশ সংরক্ষণ কার্যক্রম উপলক্ষে কুয়াকাটায় সচেতনতামূলক সভা-অনুষ্ঠিত

কলাপাড়া উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃজহিরুন্নবীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলাপাড়া উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম রাকিবুল আহসান, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুয়াকাটা পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা এবং কুয়াকাটা নৌ-পুলিশ এর ইনচার্জ মোহাম্মদ মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।


বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা বলেন, সরকারের এই যুগোপযোগী পদক্ষেপ এর জন্য সমুদ্রে ইলিশের পরিমাণ বেড়েছে। উপস্থিত সকল জেলেদের মা ইলিশ রক্ষায় অবরোধকালীন সময় সমুদ্রে মাছ না ধরার অনুরোধ জানান।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মুহাম্মদ জহিরুন্নবী বলেন, মা ইলিশ সংরক্ষণের জন্য সরকারের পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করার লক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। তাহলে সমুদ্রে অনেক ইলিশের উৎপাদন বাড়বে এবং জেলেরা বড় আকারের ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পড়ে।


এসময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএম রাকিবুল আহসান বলেন, ইলিশ মাছ আমাদের জাতীয় সম্পদ। বাংলাদেশের অহংকার রূপালী সম্পদ। এর রক্ষনাবেক্ষনের দায়িত্ব আমাদের সকলের। আমরা সকলে এক যোগ হয়ে ইলিশ সংরক্ষনে এগিয়ে আসি। বিশ্বের প্রধান ইলিশ উৎপাদনকারী দেশ হিসেবে আমরা স্বীকৃতি পেয়েছি। সুতরাং এই অর্জনকে আমাদের অটুট রাখতে হবে।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে