ষাটোর্ধ্ব-বৃদ্ধার সাথে ১২ বছরের মেয়ের বিয়ে।

ফরিদপুরের সদরপুরে এবার ব্যতিক্রম এক বিয়ের ঘটনা ঘটেছে। ৬০ বছরের বৃদ্ধা মোহাম্মাদ ফকির ১২ বছরের এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে বিয়ের ঘটনা ঘটে।

গোপনে নোটারী পাবলিক এর মাধ্যমে গত ২০ অক্টোবর শিশু বৃদ্ধার বিয়ে হয়। বিয়ের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন মেয়ের মা ফাতেমা বেগম। বাল্য বিয়ের ব্যাপারে মেয়ের বাবা মো. হাবিব পেয়াদা বাঁধা দিলে তার স্ত্রী গোপনে বিয়ের পিঁড়িতে বসান নাবালিকা কন্যাকে। এ ঘটনায় মেয়ের বাড়িতে নতুন জামাই হিসেবে মোহাম্মদ গেলে মেয়ের অন্যান্য স্বজন ও প্রতিবেশীরা তাকে আটক করে।

ঘটনার খবর পেয়ে শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে সদরপুর উপজেলার ইউএনও পূরবী গোলদার তাৎক্ষণিক মেয়ের বাড়িতে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালিয়ে মোহাম্মদ ফকির, মেয়ের মা ফাতেমা বেগম, বিয়ের সাথে জড়িত মেয়ের নানা ও নানিকে আটক করেন।

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭ এর বিভিন্ন ধারায় এ শাস্তি দেওয়া হয়। পরে বাল্যবিয়ের দায়ে বৃদ্ধ মোহাম্মদকে ১ বছরের জেল ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা দায়ের করেন। অর্থ অনাদায়ে আরও ৩মাসের জেল। অপরদিকে মেয়ের মা ফাতেমা বেগম কে ৬ মাসের জেল ও মেয়ের নানা-নানীকে ১ মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী হাকিম ও ইউএনও পূরবী গোলদার।আদালত শেষে দণ্ডিতদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে। জানা গেছে, মোহাম্মদ ফকির সদরপুর উপজেলার কৃষ্ণপুর ইউনিয়নের শৌলডুবী গ্রামের মৃত কালু ফকিরের পুত্র। বিয়ের ঘটনা ঘটে সদরপুর উপজেলার সতেররশি গ্রামে।

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে